এক বছরে মোবাইল ও ইন্টারনেটে বেড়েছে কোটি গ্রাহক

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক : গত এক বছরে দেশে মোবাইল ফোনের গ্রাহক বেড়েছে প্রায় এক কোটি। ওই সময়ে ইন্টারনেট গ্রাহক বেড়েছে ৯০ লাখ। বিটিআরসির সবশেষ হিসাবমতে এ তথ্য পাওয়া গেছে।
মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেট গ্রাহক বৃদ্ধির প্রবণতাকে এ খাতের জন্য ইতিবাচক হিসেবে দেখছে মোবাইল কোম্পানিগুলো। সামনের দিনগুলোতে প্রবৃদ্ধির হার আরও বাড়বে বলে তাদের প্রত্যাশা। মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বাড়তে থাকলে দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে তাদের প্রত্যাশা।
আজ সোমবার বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) জুন মাস পর্যন্ত মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেট গ্রাহকদের পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছে। মোবাইল কোম্পানিগুলো থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে বিটিআরসি প্রতি মাসে এ প্রতিবেদন প্রকাশ করে।
এ হিসাবমতে দেশে মোট মোবাইল ফোন গ্রাহকের সংখ্যা ১২ কোটি ৬৮ লাখ ৬৬ হাজার। অন্যদিকে ইন্টারনেট গ্রাহকের সংখ্যা চার কোটি ৮৩ লাখ ৪৭ হাজার।
বিটিআরসির ২০১৪ সালের জুলাই মাস থেকে চলতি বছরের জুন পর্যন্ত তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, এক বছরে মোবাইল ফোন গ্রাহকের সংখ্যা বেড়েছে ৯৯ লাখ ৯৫ হাজার। আর ইন্টারনেট গ্রাহকের সংখ্যা বেড়েছে ৮৯ লাখ ৮৩ হাজার ৮৫৮।
তথ্য অনুযায়ী, সিটিসেল বাদে সব মোবাইল কোম্পানির গ্রাহকসংখ্যা বেড়েছে। এ ক্ষেত্রে শীর্ষে রয়েছে গ্রামীণফোন। ৩৬ লাখ ৪৭ হাজার গ্রাহক বেড়ে তাদের গ্রাহকসংখ্যা পাঁচ কোটি ৩১ লাখ ২৯ হাজার।
এক বছরের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গ্রাহক বেড়েছে রবি আজিয়াটার। ৩১ লাখ ৫৪ হাজার গ্রাহক বেড়ে তাদের বর্তমান গ্রাহকসংখ্যা দুই কোটি ৭৩ লাখ ৬৮ হাজার।
দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম অপারেটর বাংলালিংকের গ্রাহকসংখ্যা তিন কোটি ২২ লাখ ২৪ হাজার। এক বছরে তাদের গ্রাহক বেড়েছে ২৪ লাখ ৬৪ হাজার।
এক বছরে এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেডের গ্রাহক তিন লাখ ৯০ হাজার বেড়ে ৮৭ লাখ ৪৩ হাজারে পৌঁছেছে। রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন মোবাইল কোম্পানি টেলিটকের গ্রাহক বেড়েছে পাঁচ লাখ ৪৬ হাজার। তাদের বর্তমান গ্রাহকসংখ্যা ৪২ লাখ ১৬ হাজার।
অন্যদিকে সিটিসেলের গ্রাহকসংখ্যা কমার ধারা অব্যাহত ছিল। এক বছরে তাদের দুই লাখ পাঁচ হাজার গ্রাহক কমেছে। বর্তমানে তাদের গ্রাহকসংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১ লাখ ৮৭ হাজার।
বিটিআরসির প্রকাশিত তথ্যের বিশ্লেষণে দেখা যায়, এক বছরে যে ইন্টারনেট গ্রাহক বেড়েছে, এর প্রায় পুরোটাই মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহারকারী। এ সময়ে ওয়াইম্যাক্স ব্যবহারকারীর সংখ্যা ব্যাপক হারে কমেছে। আইএসপি ও পিএসটিএনের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা কিছুটা বেড়েছে।
বিশ্লেষণে দেখা যায়, এক বছরে ইন্টারনেট গ্রাহকের সংখ্যা ৮৯ লাখ ৮৩ হাজার ৮৫৮ বাড়লেও মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়েছে ৯০ লাখ ৫৩ হাজার ৯০৪। এর মধ্যে ওয়াইম্যাক্স ব্যবহারকারী কমেছে ৯৪ হাজার। আর আইএসপি ও পিএসটিএনের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়েছে ৩৭ হাজার।
ইন্টারনেটে সক্রিয় ব্যবহারকারীর সংখ্যা হিসেব করার ক্ষেত্রে যেসব গ্রাহক সর্বশেষ ৯০ দিন ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তাদেরই বিবেচনায় নেওয়া হয়।
মোবাইল অপারেটর রবির ভাইস প্রেসিডেন্ট ইকরাম কবীর ইন্টারনেট ও মোবাইল ফোনের গ্রাহক বৃদ্ধির বিষয়টিকে ইতিবাচকভাবে দেখছেন। তিনি মনে করেন, গত এক বছরে দেশের রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ও ব্যবসা সহায়ক পরিবেশের কারণে টেলিযোগাযোগ খাতে প্রবৃদ্ধি হচ্ছে। রবির প্রবৃদ্ধি প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, গ্রাহকদের জন্য উপযোগী প্যাকেজের পাশাপাশি মানসম্মত টেলিযোগাযোগ সেবা নিশ্চিত করতে রবির নিরন্তর চেষ্টা গ্রাহক বৃদ্ধির মূলমন্ত্র।

Comments

comments