ভুলে যাচ্ছেন। রোধে কী করবেন?

আপনি কি ভুলোমনা হয়ে যাচ্ছেন? কিছু না কিছু ভুলে যাচ্ছেন সব সময়? হয়তো ভুলে যাচ্ছেন পছন্দের মানুষের জন্মদিন বা বিবাহবার্ষিকী!

প্রতিদিন আমাদের মস্তিষ্ক হাজার খানেক কোষ হারিয়ে ফেলে মানে এরা মারা যায়। এর ফলে আমরা ভুলে যেতে থাকি নানা কিছু। নতুন একটি গবেষণায় গবেষকরা বলছেন, কিছু বিষয় পালন করলে এই অন্যমনস্কতা রোধ করা যাবে। টাইমস অব ইন্ডিয়া প্রকাশ করেছে এই বিষয়ে একটি প্রতিবেদন।

টেকনোলজি নির্ভর হবেন না

আইফোন বা ইমেইল অ্যালার্ট এগুলো আমাদের জীবনকে সহজ করেছে ঠিকই কিন্তু এর মধ্যে আমরা অনেক ছোটখাটো জিনিসও ভুলতে বসেছি। গবেষকরা বলেন, এর ফলে আমাদের মস্তিষ্কের গঠন টেকনোলজির দিকে ঝুঁকছে। তাই গবেষকদের পরামর্শ, যদি ভুলে না যেতে চান তবে প্রথমেই যন্ত্রের প্রতি নির্ভরতা কমান।

ব্যায়াম করুন

ইউনিভার্সিটি অব জর্জিয়ার একটি গবেষণায় বলা হয়, দিনে অন্তত ২০ মিনিট অ্যারোবিক ব্যায়াম করলে মস্তিষ্ক শক্তিশালী হয়। ব্যায়াম চেতনাকে প্রভাবিত করতে সাহায্য করে। এটি দেহকে স্বাস্থ্যকর রাখে এবং রক্ত চলাচলকে সচল রাখতে সাহায্য করে। এর ফলে মস্তিষ্ক দ্রুত তাজা অক্সিজেন গ্রহণ করতে পারে। তাই মস্তিষ্ক কার্যকর রাখতে নিয়মিত ব্যায়াম করুন।

সামাজিক হোন

গবেষণায় বলা হয়, যেসব ব্যক্তি একা থাকেন বা একাকিত্বে ভোগেন তাঁদের স্মৃতিভ্রংশ বা ডিমেনসিয়া রোগ হয়। তাই গবেষকদের মত, সামাজিক হওয়ার চেষ্টা করুন; মানুষের সঙ্গে মিশুন। এর ফলে চিন্তা, অনুভব, যুক্তি ইত্যাদির বিকাশ হবে; যা মস্তিষ্কের কোষকে নতুন গঠন দিতে সাহায্য করবে।

খেলা করুন

মস্তিষ্ক গঠন ভালো হয় এমন কিছু খেলা খেলুন। যেমন : দাবা, শব্দ গঠন ইত্যাদি। নিয়মিত এসব খেলা অন্যমনস্কতা রোধে সাহায্য করবে এবং স্মৃতিশক্তি বাড়াবে।

যন্ত্রসংগীত শিখুন

সংগীতের রয়েছে শক্তিশালী ক্ষমতা, যা মস্তিষ্ককে বুড়িয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করে। তাই যন্ত্রসংগীত শিখতে পারেন। এটি কেবল আপনার সংগীতের জ্ঞানকেই ভালো করবে না, মস্তিষ্কের শক্তিকেও বাড়াতে সাহায্য করে। যেসব শিশু ছোটবেলা থেকে গান শেখে, তাদের আইকিউ অনেক ভালো হয়। যদি গান পছন্দ না করেন তবে নতুন ভাষা শিখতে পারেন। এরও একই ধরনের প্রভাব রয়েছে মস্তিষ্কে। বিভিন্ন গবেষণায় বলা হয়, নতুন ভাষা শেখাও স্মৃতিভ্রম প্রতিরোধে সাহায্য করে।

Comments

comments